Category Archives: ছোট গল্প

কর্ম জীবনের গল্প: মধ্যরাতেই যখন আমার ভোর হয়

পৃথিবীতে যদি কোথাও শান্তি কিংবা সুখের পরশ থাকে সেটা হচ্ছে নিজের মাতৃভূমি। নিজের মা কে ছেড়ে দূরে থাকা যেরকম কষ্টের তেমনি নিজের দেশকে ছেড়ে প্রবাসে বাস্তবতার সাথে নিজেকে অঙ্গার করে পড়ে থাকাটা ও কম কষ্টের নয়। স্বাদের আমেরিকাতে এসে ছোট্ট জীবনে যে পরিমান অভিজ্ঞতা নিতে হয়েছে তা হয়তো মাতৃভূমিতে থাকলে অতটা পেতাম না। এখানে ও […]

মা: পার্ট ১, একটি সত্য ঘটনা অবলম্বনে

এমনিতে আমেরিকার লাইফে অনেক ব্যস্ততা। তারপরে মাঝরাতে বাংলাদেশ থেকে কোন ফোন কল আসলেই অনেক ভয় কাজ করত, কারণ অনেক আত্মীয় স্বজনের খারাপ খবর পেয়েছি যারা এই পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করে চলে গেছেন ওপারে অথচ শেষ বারের মত একবার রক্তের সম্পর্ক গুলোর মুখ তো দূরের কথা, এক মুঠো মাটি ও দিতে পারিনি। যাই হোক আসি মেয়েটির […]

সামর্থ্য অনুযায়ী নিজের বেস্টটা করা উচিত নয় কি?

প্রত্যেকটা মানুষের নিজস্ব কিছু স্বপ্ন থাকে, স্বপ্ন গুলো যখন বাস্তবের সীমানায় এসে ঠেকে, ঠিক তখনি মনে হয় জীবনের সব ফেলে আসা ভুলে আজকের ওই এক দিনকে অতিমাত্রায় সবার মত আলোকিত করে তুলি। প্রশ্ন হচ্ছে, সবাই কি একই ছাতার নিচে নিজের স্বপ্নগুলো প্রতিফলন ঘটাতে পারে বা সবার কি একই পরিমান সামর্থ্য আছে? যা মানুষ বাকিদের মত […]

বাবা

অনেক মানুষকে বলতে শুনেছি, সর্বপ্রথম মানুষ হিসেবে নিজেকে প্রথমে ভালোবাসতে হবে, তারপর না হয় অন্যকে ভালোবাসা যাবে। যদি ও আমি এক্ষেত্রে নিজেকে দ্বিতীয় স্থানে রাখতে চাই। আজকের “আমি” যার উছিলায় এই পৃথিবীতে তারা হচ্ছেন আমার বাবা মা। এই দুইজন মানুষকে আমি নিজের চাইতে ও খুব বেশি ভালোবাসি। বাবা অতি চটপট একজন লোক কিন্তু অনেক ভদ্রতা […]

ছোট্ট কাজের মেয়ে “শারমিনের” গল্প

আমাদের সমাজে অনেক কিছু আছে যেগুলো নিয়মতান্ত্রিক না। আবার অনেক সময় দারিদ্রের সাথে লড়াই করতে করতে বাবা মায়েরা ও ক্ষুধার যন্ত্রনায় এইসব কম বয়সী ছেলে কিংবা মেয়েদেরকে মানুষের বাসা বাড়িতে কাজে পাঠিয়ে দেন। নিয়ম অনুযায়ী এইসব ছেলে মেয়েদের হয়তোবা কখনোই কারো বাসা বাড়িতে কাজ করা উচিত না। ওরা থাকার কথা অন্যান্য বাবা মায়েদের সন্তানদের মত […]

কিছু কিছু গল্প যখন নিজেকে আনমনে কাঁদায়

বাংলাদেশের প্রতিটি শীত, গ্রীষ্ম, শরৎ, হেমন্ত কিংবা বসন্ত কাটতো খুব হেসে খেলে। জীবনে যে এক ধরণের দায়িত্ববোধ আছে সেটাই জানতাম না। প্রতি মুহূর্তে জীবনকে উপভোগ করে চলছি ক্রিকেটের বল এবং ব্যাটে। কখনোবা বৃষ্টির পানিতে বন্ধুদের সাথে মিশে গিয়ে ফুটবল খেলায়। কখনো দূর্বাঘাসে বসে ষোলোগুটিতে, আবার কখনোবা চায়ের কাপে চুমুক দিতে দিতেই হাসি ঠাঠ্রায় ভরে উঠতো […]